রৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৌদ্ররৃষ্টিরৌদ্ররৃষ্টি রৌদ্রবৃষ্টি রৌদ্রবৃষ্টি রোদ্রবৃষ্টি
   
 
  সমন্বিত মৎস্য চাষ

নোয়াখালীর উপকূলীয় খাস জমির জটিলতা-৫


সমন্বিত মৎস্য চাষ: উপকূল যেন সোনার খনি
মাহমুদুল হক ফয়েজ

নোয়াখালীর সুধারাম থানার দক্ষিণে থানার হাটে প্রায় পাঁচ একর জমিতে তিন বন্ধু মিলে গড়ে তুলেছে একটি মৎস্য খামার। কামাল, শাকিল আর আনিছ ছিলো বেকার যুবক ; স্বপ্ন ছিল তিনজনে মিলে একটা কৃষি-প্রকল্প গড়ে তুলবে। কিন্তু তারা ঠিক সুবিধা করতে পারছিলো না। শেষে নোয়াখালী মৎস্য দপ্তরের সঙ্গে তারা যোগাযোগ করলে মৎস্য বিভাগ তাদেরকে একটি মৎস্য প্রকল্প গড়ে তোলার জন্য পরামর্শ এবং ধন দেয়। সোনাপুরের হ্যাচারী থেকে চিংড়ি পোনা সংগ্রহ করে তিন বন্ধু তাদের প্রকল্পে অন্যান্য মাছের সাথে গলদা চিংড়ি চাষের উদ্যোগ নেয়। প্রথম অবস্থায় তারা এক হাজার চিংড়ি পোনা ছেড়ে ৫ মাস পরে পেয়েছে ৮৮৮টি চিংড়ি। নিজের প্রত্য অভিজ্ঞতা থেকে প্রকল্পের অন্যতম উদ্যোক্তা কামাল উদ্দিন জানান, সমন্বিত পদ্ধতিতে চিংড়ি চাষ করলে স্বাভাবিকের তুলনায় বহুগুণ বেশি লাভ পাওয়া যায়।
গ্রেটার নোয়াখালী একোয়াকালচার এক্সটেনশন প্রজেক্ট (জিএনএইপি) অর্থাৎ বৃহত্তর নোয়াখালী মৎস্য সম্প্রসারণ প্রকল্প মূলত নিুবিত্তের ছোট ছোট পরিবারগুলোকে সরাসরি সহযোগিতা করে আসছে। কিন্তু তারা কোনো প্রকার আর্থিক সহযোগিতা দেয় না ; কারিগরি জ্ঞানসহ মৎস্য সংরণ ও বাজারজাতকরণের যাবতীয় সহযোগিতাই করছে। এ বিষয়ে জেলার প্রতিটি ইউনিয়নে একটি করে তথ্যকেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। মৎস্যচাষ সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য গ্রামের কৃষকরা এখান থেকে পেয়ে থাকে। বৃহত্তর নোয়াখালীতে এরকম ৫০টি তথ্যকেন্দ্র রয়েছে। তথ্যকেন্দ্রটি পরিচালিত হয় একটি কমিটির মাধ্যমে। কমিটির সদস্যরা এলাকারই কৃষক। শুধু মৎস্যই নয় এই তথ্যকেন্দ্র থেকে তারা কৃষি সংক্রান্ত বিষয়ে অবগত হতে পারেন।
পুকুরে অন্য মাছর সাথে গলদা চিংড়ি চাষে কৃষকরা লাভবান হচ্ছেন দেখে এখন এলাকায় অনেকেই উৎসাহী হয়ে উঠেছেন। নবগ্রামের হনুফা বেগমের স্বামী সৈয়দ আহম্মদ প্রায় ৫ বছর আগে টিউমারে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। ৪ ছেলে, ১ মেয়ে নিয়ে হনুফা খুব অসহায় হয়ে পড়েন। পনের বছর আগে সরকার থেকে তারা দেড় একর কৃষি-জমি বন্দোবস্ত পায়। সেই জমিতে বিশ ডেসিমেল আয়তনের একটি পুকুর কেটে ঘরের ভিটা ও কিছু জায়গা উঁচু করেছে। উঁচু জায়গায় নারকেল, আম, সুপারিসহ নানান গাছ লাগানো হয়েছে। কিন্তু স্বামী মারা যাবার পর হনুফা খাতুন ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েন। স্বামীর চিকিৎসা ও সংসারের খরচ মিটানোর জন্য ভিটে ছাড়া বাকি সব জমি স্থানীয় এক অবস্থাপন্ন কৃষকের কাছে বন্ধক দেন। বন্ধকের পরিমাণ নয় হাজার টাকা। হনুফা বেগম ৪/৫ বছর বহু চেষ্টা করেও জমিটি বন্ধক থেকে ছাড়াতে পারেননি। পুরো জমিটি যখন হাতছাড়া হয়ে যাবার উপক্রম হলো তখন তিনি যোগাযোগ করেন তথ্যকেন্দ্রে। সেখান থেকে পরামর্শ অনুযায়ী তিনি তার ছোট পুকুরে পরিকল্পিতভাবে ৩ হাজারটি গলদা চিংড়ির পোনা ছাড়েন। ৫ মাস প্রয়োজনীয় পরিচর্যার পর তিনি তা বিক্রির জন্য ধরেন। ধরার সময় গুণে দেখেন ২৪৮২টি মাছ টিকে গেছে। প্রতিটি চিংড়ি তিনি বিক্রি করেন পাঁচ টাকায়। খরচপাতি বাদে তার লাভ হয় প্রায় ১২ হাজার টাকা ; নয় হাজার টাকা দিয়ে তিনি তার বন্ধকী জমি ছাড়িয়ে নেন। বাকি টাকায় একটি বাছুর ও কিছু হাঁস ও মুরগি কেনেন। এ বছর তিনি আবার তৈরি হচ্ছেন গলদা চিংড়ি চাষ করার জন্য। হনুফা আশা করছেন এ রকম চাষ করলে তার ভাগ্য অচিরেই ফিরে যাবে। লক্ষ্মীপুরের সমিতির হাট থেকে নদীভাঙ্গনের ফলে হনুফারা এ অঞ্চলে একটুকরা জমির আশায় ছুটে আসেন। তার পৈতৃক জমি গ্রাস করে ফেলেছে মেঘনা। সেখানে আর যাওয়ার উপায় নেই। বড় ছেলে জাফর চট্টগ্রামে রিক্সা চালায়। স্ত্রী-পুত্র নিয়ে সেখানেই থাকে। মাে য়র মাছ বিক্রির খবর পেয়ে ছুটে এসেছিলো টাকার ভাগের জন্য। সুবিধা করতে না পেরে আবার ফিরে গেছে। হনুফা’র একমাত্র মেয়ে তসনিমা ৪র্থ শ্রেণীতে পড়ে। হনুফার আশা মেয়েকে অনেক দূর পড়াবেন। ভালো ঘর দেখে বিয়ে দেবেন।
এভাবে নোয়াখালীর দক্ষিণাঞ্চলে পাইলট প্রোগ্রামের অধীনে প্রায় ৫০০টি পারিবারকে জিএনএইপির আওতায় কারিগরি সহযোগিতা দেয়া হচ্ছে। সরকারি খাসজমি বন্দোবস্ত প্রক্রিয়ায় এই পরিবারগুলো জমির মালিক হয়েছে। তাদের প্রত্যেকের রয়েছে ৪০ ডিং পুকুর। এই চাষে প্রথমে তেমন কেউ উৎসাহী হয়নি। কারণ কৃষকরা মনে করতো, গলদা বা বাগদা চিংড়ি চাষের মতো পরিবেশ এখানে হবে না। কিন্তু গলদা চিংড়ি মিঠা পানির মাছ হওয়াতে সে সমস্যা একেবারে নেই। স্বাভাবিক মৎস্য চাষের সঙ্গে সমন্বিতভাবে গলদা চিংড়ি চাষ করা অনেক লাভজনক। নোয়াখালীর চরাঞ্চলের অনেক দরিদ্র কৃষক বর্তমানে সমন্বিত চিংড়ি চাষ  করে লাভবান হচ্ছেন।
ভূমিহীনদের পুনর্বাসনের জন্য’ ৮০ সালে নোয়াখালী সদরের চর বামনায় ভূমিহীনদের জন্য একটি গুচ্ছগ্রাম প্রতিষ্ঠিত হয়। সেসময় গুচ্ছ গ্রামটির নামকরণ করা হয় চন্দ্রমুখী। এ গুচ্ছগ্রামটিতে ১৩টি পরিবার এক একর পঞ্চাশ ডেসিমেল করে জমি বরাদ্দ পায়। একটি বড় পুকুর কেটে তার চতুর্দিকে পরিবারগুলোকে ভিটা বরাদ্দ দেয়া হয়। পুকুরের মধ্যেও পরিবারগুলোর মালিকানা নিশ্চিত হয়। পুকুর, ভিটা ও ধানী জমি মিলে প্রতিটি পরিবার মোট দুই একর করে জমির মালিক হয়। উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো যে এ পরিবারগুলোর নারীরা সবাই ছিলো বিধবা। সে কারণে এ কলোনীকে বিধবা কলোনী বলা হয়। নেদারল্যান্ডের আর্থিক সহযোগিতায় এ গুচ্ছ গ্রাম প্রতিষ্ঠিত হয়।
চন্দ্রমুখী গুচ্ছগ্রামের মনোয়ারা বেগম ও হনুফা বেগম-দুজনই বিধবা ছিলেন। এখন তারা আবার বিয়ে করেছেন। তারা জানান চন্দ্রমুখী গুচ্ছগ্রামের ১৩ জন অধিবাসী নিয়ে তারা একটি দল গঠন করেছেন। এ দলে সবাই মহিলা। গুচ্ছ গ্রামের দেড় একর আয়তনের পুকুরে তারা সমবায় ভিত্তিতে মৎস্যচাষ শুরু করেন ২০০২ সাল থেকে। নোয়াখালী মৎস্য সম্প্রসারণ বিভাগ তাদেরকে প্রয়োজনীয় প্রশিণ দেয়। এল্েয এ পুকুরে কাতল, সিলভার কার্প, রুই, মৃগেল, সরপুটি, গ্রাসকাপ প্রভৃতি জাতের মাছের সাথে গলদা চিংড়ি চাষ  করা হচ্ছে। এ চাষের জন্য পোনা খরচ বাবদ ৮ হাজার ৮৪ টাকা মৎস্য বিভাগ ঋণ হিসাবে প্রদান করে। এক বছর পর তাদের লাভ হয় ত্রিশ হাজার টাকা। এভাবে গুচ্ছ গ্রামের প্রতিটি ভূমিহীন পরিবার মৎস্য চাষ করে আয়ের উৎস খুঁজে পেয়েছে।
জেলা মৎস্য সম্প্রসারণ বিভাগ ও জিএনএইপি জানায়, উপকূলীয় জেলার সুধারাম থানায় ৬০টি গুচ্ছগ্রাম রয়েছে। প্রতিটি গুচ্ছগ্রামে গড়ে ন্যূনপে একটি বড় পুকুর বা দীঘি রয়েছে। এসব দীঘিতে সমন্বিত মৎস্য ও চিংড়ি চাষ করলে দেশের অর্থনীতিতে বিরাট অবদান রাখা সম্ভব হবে। বর্তমানে ৩০টি গুচ্ছগ্রামে এ প্রকল্প সন্তোষজনকভাবে শুরু হয়েছে। এখানে রয়েছে ১ হাজার ৮’শ পরিবার।
মৎস্য চাষের এই প্রকল্প শুধুমাত্র নোয়াখালীর চরাঞ্চল কিংবা উপকূলেই নয়, বৃহত্তর নোয়াখালীর বিস্তীর্ণ জলাবদ্ধ এলাকায়ও নেয়া হচ্ছে। বেগমগঞ্জ, সেনবাগ, চাটখিল ও লক্ষ্মীপুর জেলার বেশ কয়েকটি এলাকায় বছরে ছয়-সাত মাস জলাবদ্ধতায় কোনো ফসল উৎপন্ন হয় না। অথচ এই সব জলাভূমিকে সামান্য সংস্কার করে সমন্বিত মৎস্য চাষ করলে কৃষকরা অধিক লাভবান হবেন বলে মৎস্য সম্প্রসারণ বিভাগ জানিয়েছে। পরীামূলকভাবে বেগমগঞ্জের একলাসপুর ইউনিয়নের ওলি আহম্মদ মানিক তার ৫ একর জলাবদ্ধ জমিতে সমন্বিত চিংড়ি চাষ করে বিপুল পরিমাণে লাভবান হয়েছেন। তিনি জানান, ৫ একর জমিতে তিনি প্রায় ৪০ হাজার টাকা খরচ করে রুই, কাতলা জাতীয় মাছের সাথে চিংড়ি চাষ করেন বছর শুরু হওয়ার সাথে সাথেই। মাত্র ৭ মাসে তিনি সে জমি থেকে দেড় ল টাকা আয় করেন শুধুমাত্র গলদা চিংড়ি থেকে। এলাকার অন্যান্য চাষীরা বলেন, দীর্ঘ দিন এ অঞ্চলে জলাবদ্ধতা তাদের জন্য অভিশাপ হয়ে দেখা দিয়েছিলো। কিন্তু বর্তমানে মৎস্য অধিদপ্তরের গৃহীত প্রকল্পে এখন সে অভিশাপ আর্শিবাদে রূপ নিয়েছে।
লক্ষ্মীপুরের চন্দ্রগ্রাম বাজারের পাঁচপাড়া গ্রামের খালেকগঞ্জ বাজারে রয়েছে মুনস্টার যুব উন্নয়ন বহুমুখী সমবায় সমিতি। এই সমিতি ২০০০ সনে জলাবদ্ধ জমিতে এবং পাশ দিয়ে বয়ে চলা বদ্ধখালে পরীামূলকভাবে মৎস্য চাষ শুরু করে। সমিতির সম্পাদক জহিরুল ইসলাম লিটন জানান, কীটনাশক ব্যবহারের ফলে তাদের এলাকায় দিন দিন ঐতিহ্যবাহী ছোট মাছগুলো কমে আসছিলো। বর্তমানে তারা সমিতির উদ্যোগে জলাবদ্ধ জমি ও খালের ৩০০ মিটার ইজারা নিয়ে মৎস্যচাষ শুরু করেন। নানা জাতের মাছের সাথে তারা গলদা চিংড়ি চাষ করেন। তিনি জানান, গত বছর প্রাকৃতিকভাবে তারা পুটি, বাইম, পাবদা এবং এরকম ২৩ প্রজাতির মাছ পেয়েছেন ১২০ কেজি। যা আগের তুলনায় অনেক কম। পরবর্তী বছর তারা আবার মাছ চাষ করেন। কৃষকদের তারা উৎসাহী করে তোলেন কীটনাশক ব্যবহার বন্ধ করার জন্য। এ বছর তারা নুতন প্রজাতির আরো ৩টি মাছ পেয়েছেন। গলদা চিংড়ি ছাড়া হয়েছিলো ৫০০টি ; পেয়েছেন ৩৯৭টি। তারা জানান, এ প্রকল্প থেকে ১ হাজার টাকা লাভ হয়েছে। সমিতিতে রয়েছে ১৫ জন সদস্য ; তারা সবাই একমত হয়ে জানান, জলাবদ্ধ জমিতে সমন্বিত মৎস্য চাষ করলে লাভবান হওয়া যায়।
জিএনএইপি’র লক্ষ্মীপুরের সমন্বয়ক তারিক আকবর জানান, ধান আমাদের প্রধান ফসল। এই ফসল বাদ দিয়ে আমরা কৃষককে মৎস্যচাষ করার উৎসাহ দেই না। ধান চাষ করেই কৃষকরা মৎস্য চাষ করতে পারছে। শুধু জলাবদ্ধ জমিতে এই এই ব্যবহার করা যেতে পারে। লক্ষ্মীপুর জেলার ভাংখা খাঁ ইউনিয়নের বাংখা গ্রামের ১৫ জন মহিলা নিয়ে একটি সমবায় সমিতি গঠন করা হয়েছে। প্রত্যেকেরই আছে দশ থেকে ত্রিশ শতাংশের পুকুর। এই পুকুরগুলোতে তেমন মাছ চাষ করা হতো না। বাড়ির সীমানার মধ্যেই এই পুকুরগুলো অবস্থিত। বাড়ির মানুষেরা গৃহস্থালীর কাজে পুকুরগুলো ব্যবহার করে। এগুলো এতদিন উৎপাদনহীন অবস্থায় ছিল। সমতির সদস্যরা পুকুরগুলো সংস্কার করে সমন্বিত মাছ চাষ করছে। উল্লেখ্য যে, সব পুকুরেই গলদা চিংড়ি চাষ হচ্ছে। মাছের খাদ্যের জন্য কোনো কৃত্রিম খাবার দেয়া হয় না। পুকুরে হাঁড়ি পাতিল ধোয়ার সময় ফেলে দেয়া উচ্ছিষ্ট মাছের খাদ্য হিসাবে ব্যবহৃত হয়। তাছাড়া সেল, কুঁড়া, চিটাগুড়, শুটকী গুড়ো ইত্যাদি দিয়ে খুব অল্প খরচে সহজে মাছের খাদ্য উৎপাদন করার একটি সহজ পদ্ধতি গ্রামীণ নারীরা উদ্ভাবন করেছেন।
মৎস্য সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানায়, খুব সহজ পদ্ধতি ও কম খরচে কি করে মৎস্য চাষ করা যায় সে বিষয়ে তারা কৃষকদের সার্বণিক সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন। গ্রামীণ নারীদের অনেকেই বলেছেন, ঘরের মধ্যে থেকেও মৎস্য চাষ করে তারা লাভবান হচ্ছেন। তবে সমিতি ছাড়াও ৩০০ থেকে ৩৫০ জন মহিলা ব্যক্তিগত উদ্যোগে মৎস্য চাষ করেছেন। গৃহিনী খুকী বেগম ও রেহানা বেগম জানান, ২০০১ সাল থেকে তারা সমন্বিত মৎস্য চাষ করছেন। নতুনভাবে তারা এই চাষ শুরু করেছেন। তবে তারা জানান, খুব আশাপ্রদ না হলেও নিরাশ হওয়ার মতো কিছু এখনো ঘটেনি।
বৃহত্তর নোয়াখালী জেলা মৎস্য অধিদপ্তর (জিএনএইপি) ও এনজিও সমন্বয়ে মৎস্য চাষসহ গলদা চিংড়ির ব্যাপক প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই এর সুফল ল্য করা যাচ্ছে। এ বিষয়ে লক্ষ্মীপুরের ভারপ্রাপ্ত মৎস্য কর্মকর্তা এ কে এম সিদ্দিক জানান, লক্ষ্মীপুরে ত্রিমুখী কার্যক্রম তিনটি সংস্থা দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে। মৎস্য অধিদপ্তর, এনজিও কোডেক এবং মূল সহযোগিতা পাওয়া যাচ্ছে জিএনএইপি থেকে। মূল প্রজেক্টে রয়েছেন ৩ জন কর্মকর্তা এবং প্রতিটি উপজেলায় রয়েছেন ১ জন করে কর্মকর্তা। মাঠ পর্যায়ে রয়েছেন মৎস্য কর্মকর্তারা। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা, সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা এবং মাঠ সহায়কগণ এ প্রকল্পের সার্বিক সহযোগিতা করছেন। তারা প্রতিটি ইউনিয়নে ট্রেনিং, গ্র“পিং, কারিগরি সহযোগিতা ইত্যাদি সার্বিক দেখাশুনা করছেন। প্রতিমাসেই জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে মিটিং হচ্ছে। উপজেলায় যে কমিটি আছে তার সভাপতি উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা এবং জেলার সভাপতি জেলা মৎস্য কর্মকর্তা। কোনো সমস্যার সমাধান না করতে পারলে তা জেলার প্রজেক্ট মনিটরিং কমিটির (পিএসসি)-র কাছে পাঠানো হয়। সার্বিক কর্মকাণ্ড নোয়াখালীর মাইজদীতে মূল অফিসে ম্যানেজম্যান্ট কমিটি’র সমন্বয় করা হয়। প্রতিমাসেই এর সভা হয়।
এ কে এম সিদ্দিক জানান, আমি ২০০১ সালে এখানকার অফিসে যোগ দেই। প্রথমেই আমি কিছু সমস্যায় পড়েছিলাম। আমরা মূলত কৃষকদেরকে মাছ চাষে উদ্বুব্ধ করছি। প্রজেক্টের মাধ্যমে ন্যূনতম পাঁচ হাজার টাকার টেকনিক্যাল সহযোগিতা করা হয়। মূলত দরিদ্র শ্রেণীর কৃষকদের নিয়ে কাজ করছি। আমাদের মূল কাজ মাছ চাষ করা ; মাছ চাষের মাধ্যমে দারিদ্র বিমোচন করা। এই মাছ চাষ কি করে বিজ্ঞান সম্মতভাবে করা যায় তা দশটি মডিউলের মাধ্যমে ট্রেনিং দেয়া হয়। এদের জন্য একটি সঞ্চয় প্রকল্প রয়েছে স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য। প্রতিমাসে গ্র“পগুলোর দু’টি করে সভা হয়। সঞ্চয় থেকে তারা অর্থ নিয়ে প্রয়োজনে কাজে লাগাতে পারে। সমস্যা যেটা তা হলো, এর আগে এক্সটেনশন কর্মীরা যে গ্র“প করেছিল আমি এসে দেখলাম তাদের অনেকেই নেই। মাছ চাষও করছে না। ২০০২ সালে এসে আমরা আবার পুনর্গঠিত করলাম। এখন আমাদের প্রধান কাজ হলো গ্র“পগুলোকে ধরে রাখা এবং মাছ চাষে সার্বণিক সহযোগিতা করা। এ বছর থেকে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যারা গ্র“প করবে তাদেরকে প্রকৃতই দরিদ্র হতে হবে এবং আমাদের পরামর্শ অনুযায়ী কাজ করতে হবে। বৃহত্তর নোয়াখালীর বেশ কিছু অঞ্চল জলাবদ্ধ। এই অঞ্চলে আমরা ধান কাটার পর ধানেেত, বর্ষায় জলাবদ্ধ জমিতে এবং ঘেরে মাছ চাষ শুরু করেছি। বৃহত্তর নোয়াখালীর একোয়াকালচার প্রকল্পের সাফল্যের মধ্যে মূল সাফল্য হলো, আমরা মাছের সাথে গলদা চিংড়ি চাষে অভাবনীয় সাফল্য আনতে পেরেছি। দু’টি গলদা চিংড়ির হ্যাচারী স্থাপন করা হয়েছে। রায়পুরে একটি মৎস্য অভয়াশ্রম রয়েছে ; এদেরকে কোনোরূপ আর্থিক সহযোগিতা না দিয়ে গলদা চিংড়ি চাষের কারিগরি সহযোগিতা করা হচ্ছে। নোয়াখালীতে এর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। পরবর্তীতে এর সাফল্য আমরা পার্শ্ববর্তী জেলায় ছড়িয়ে দিতে পারবো। তিনি জানান, ‘লোকবলের অভাবে সরকারি কর্মকর্তাদের উপর অত্যধিক চাপ পড়ছে। একা তিনটি দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে।’ তিনি আরো জানান, ‘মৎস্য চাষিদের সরকারিভাবে নানা সুযোগ-সুবিধা রয়েছে ; জলাবদ্ধ খাস বিশ একরের নীচের জমিকে উন্নয়ন করে মাছ চাষের আওতায় আনা এবং হস্তান্তর করা। প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে এ জলাশয়গুলো পাঁচ বছরের জন্য ইজারা দেয়া হয়। তবে আমরা নিয়মিতভাবে পুকুর পরিদর্শন করছি, জেলার সব পুকুরেই যেন মাছ চাষ করা যায় তার পরামর্শ দিচ্ছি। কিন্তু অনেক েেত্র লোকবলের অভাবে আমরা মৎস্য চাষীদের সময়মতো সহযোগিতা করতে পারি না। কৃষি বিভাগের মতো প্রতিটি উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে মৎস্য বিভাগের কর্মী থাকা আবশ্যক।’
নোয়াখালী মৎস্য অধিদপ্তরের সমন্বয়ক দীন মোহাম্মদ মহসীন এ ব্যাপারে খুবই আশাবাদী। তিনি জানান, ‘শুধুমাত্র নোয়াখালী জেলাতেই সমন্বিত মৎস্য চাষের সাথে গলদা চিংড়ি চাষ করলে বছরে আড়াই হাজার কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব।’ নোয়াখালীর জলাবদ্ধ জমিতে গলদা চিংড়ি চাষ শুরু হলে নোয়াখালীবাসীর আর্থ-সামাজিক অবস্থার দ্রুত উন্নতি হবে। তিনি জানান, ‘আমরা সার্বিকভাবে কৃষকদের এ ব্যাপারে সহযোগিতা করে আসছি। তবে গরিব সম্বলহীন মানুষদের আমরা সহযোগিতা করতে আগ্রহী। ইতিমধ্যেই পরিবেশসম্মতভাবে উৎপন্ন নোয়াখালীর গলদা চিংড়ির প্রতি বিদেশী ক্রেতাদের আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে।’
নোয়াখালীর বিপুল সংখ্যক খাসভূমিকে কি করে আরো উৎপাদনমুখী করে সাধারণ ভুমিহীনদের কাছে হস্তান্তর করা যায় তা নিয়ে বিভিন্ন সময় পরিকল্পনা করা হয়েছে। খাসজমিকে মৎস্য উৎপাদনে সমন্বয় করা যায় কিনা সে ব্যাপারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিপার্টমেন্ট অব একোয়াকালচার এন্ড ফিশারিজ-এর প্রভাষক মো. রোকনুজ্জামান জানান, ‘নোয়াখালীর পরিবেশ খুবই বৈচিত্রপূর্ণ। সফলভাবে সঠিক পরিকল্পনা করতে পারলে দেশ বিপুল ভাবে লাভবান হতে পারবে। বেগমগঞ্জের ভৌগোলিক অবস্থা একটু নিচু। কিন্তু চর এলাকা অপোকৃত উঁচু। বেগমগঞ্জে যেহেতু লবণাক্ততা নেই অতএব এখানে বাগদা চাষ করা যাবে না। এখানে একমাত্র গলদা চিংড়ির চাষ বেশ লাভজনক হতে পারে। এর সাথে সাথে নানান জাতের মাছের চাষ করে উন্নতি করা সম্ভব। এখানে সামাজিক পরিবেশও খুব উন্নত, তবে নারীরা খুবই রণশীল। কিন্তু তারপরও নারীরা মাছ চাষে এগিয়ে এসেছেন। আমরা যদি কোয়ালিটি ঠিক রাখতে পারি তাহলে বাইরে এর প্রসার ঘটবে খুব দ্রুত। কোনো রকম রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ছাড়া মাছ চাষ হলে বাইরে বাজার মূল্য হবে অনেক। আশার কথা যে নোয়াখালীর মাটি খুবই উর্বর। ভাইরাস আক্রমণেরও কোনো সম্ভাবনা নেই। এ অঞ্চলে আর একটা জিনিস লণীয় যে, মাছ চাষের সাথে সমন্বিত চাষও করা যায়। এতে জমির সর্বোচ্চ ব্যবহার হচ্ছে। কৃষকরাও লাভবান হচ্ছে। এ জমিতে মাছ ছাষের সাথে ধান চাষ চলছে। আবার পাশের চড়া নালায় নেটিং করে লাউ জাতীয় শব্জী এবং উঁচু আইলে নানান প্রকার শব্জী চাষ করা চলে, প্রভাবে একই জমিতে নানান কিছু উৎপাদন করা সম্ভব। আবার সমন্বিতভাবে সমবায় ভিত্তিতে চাষাবাদ করা যায়। যার যার ভূমি অনুযায়ী আনুপাতিক হারে লাভ নেয়া যেতে পারে।’ তিনি আরো বলেন, ‘নোয়াখালীতে নারীদের সামাজিক প্রতিবন্ধকতা একটু বেশি। এটা দূর করতে পারলে সমাজ অনেক এগিয়ে যাবে।’
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একই বিভাগের ড. কাউছার আহমেদ বলেন, ‘আমরা অনেকেই জানি যে প্রাকৃতিক বনায়ন ধ্বংস করে বাগদা চিংড়ি চাষ করে সুন্দরবন তিগ্রস্ত হয়েছে। চকোরিয়াতে পরিবেশ বিধ্বংসী অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। তবে নোয়াখালীতে গলদা চিংড়ির যে পরীামূলক চাষ হচ্ছে তাতে তেমন কোনো তি হচ্ছে না বললেই চলে ; এখানে মিঠা পানিতে গলদা চিংড়ি হচ্ছে আবার তার সাথে অন্যান্য মাছও চাষ হচ্ছে। নোয়াখালীর দেিণ যে নতুন চর জাগছে তাতে বাগদা চিংড়ির বদলে গলদা চিংড়ির চাষ করাই উত্তম। নোয়াখালীর জলাবদ্ধ জমি ও অব্যাহৃত পুকুরে  যে ল ল টাকার মাছ ও গলদা চিংড়ির চাষ হচ্ছে তা অর্থনৈতিক সুফল বয়ে আনবে বলে আমি মনে করি। বাগেরহাট এবং চকোরিয়াতে যেভাবে পরিবেশ ধ্বংস করে চিংড়ি উৎপাদন হচ্ছে নোয়াখালী তার একেবারে বিপরীত। এখানে পরিবেশকে তিগ্রস্ত না করেই গলদা চিংড়ি চাষ করে ঐ অঞ্চল থেকেও অধিক বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব।’
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগের অপর এক প্রভাষক মাহমুদ হাসান জানান, ‘জিএনএইপি-এর প্রজেক্ট করার প্রধান রিসোর্স নোয়াখালীর পুকুর। এ অঞ্চলে ল ল পুকুর রয়েছে, আবার বিশুদ্ধ পানি রয়েছে। মিঠা পানির গলদা চিংড়ি খুবই পরিবেশ বান্ধব। এখানে ঐ বড় বড় পুকুরগুলোতে গলদা চিংড়ি চাষ করলে অর্থনৈতিক বিপ্লব সাধিত হওয়া সম্ভব। আমার মনে হয়, সঠিক পরিকল্পনা করতে পারলে আগামী পাঁচ বছরে নোয়াখালীর চেহারা বদলে যাবে। দ্রুত লাভের মানসিকতা বাদ দিয়ে ধীরে ধীরে পরিবেশসম্মতভাবে পুকুরগুলোকে ব্যবহার করতে হবে। এ চাষ যাতে দীর্ঘস্থায়ী করা যায় তার দিকে নজর দিতে হবে। উৎপাদক থেকে ভোক্তা পর্যন্ত সবার মধ্যে বিশ্বাস রাখতে হবে। সৎ হতে হবে। সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা থাকতে হবে। যে কোনো ব্যাপারে আমরা যদি একে অপরের প্রতি দায়বদ্ধ থাকি তাহলে আমরা অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারবো। অনেক সমস্যার সমাধানও আমরা করতে পারবো’। নোয়াখালীর দেিণ যে বড় বড় চিংড়ি ঘের করার আত্মঘাতি পরিকল্পনা করা হচ্ছে সে ব্যাপার তিনি জানান, ‘সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার জন্য ছোট ছোট প্রকল্পই সুবিধাজনক। যত ছোট প্রকল্প হয়, ম্যানেজমেন্ট তত সহজ হয়।’
নোয়াখালীর দক্ষিণাঞ্চলে যে বিপুল পরিমাণ খাস ভূমি জেগে উঠছে তা যেন পরিকল্পনাহীন ভাবে অনুৎপাদনশীল না থাকে। আমাদের যেমন আছে প্রাকৃতিক সম্পদ, তেমনি আছে বিপুল সম্ভাবনাময় মানুষ। সেসব মানুষকে কাজে লাগিয়ে ভূমির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। খাসজমি পাওয়ার একমাত্র অধিকার রয়েছে ভূমিহীনদের। ভূমিহীনদের নামমাত্র ভূমি বরাদ্দ দিয়েই দায়িত্ব শেষ করা যাবে না। ভূমিহীনদের  এমনভাবে জমি বরাদ্দ দিতে হবে যেন তারা সে জমি থেকে সর্বোচ্চ সুবিধা পায়, উৎপাদন করতে পারে। একজন ভূমিহীন একই ঘেরের মধ্যে থেকে ধান চাষ, মৎস্য চাষ, বনায়ন, শব্জী চাষ, হাঁস-মুরগী ও গবাদী চাষের মাধ্যমে বাড়িকে কি করে উৎপাদনমুখী করতে পারে, সেটা নিশ্চিত করতে হবে। চিংড়ি ঘেরের নামে ভূমিহীনদের বঞ্চিত করে সুবিধাভোগীরা ভূমি লুটেরা চক্র যে পরিকল্পনা নোয়াখালীর উপকূলে শুরু করেছে তা দেশের জন্য কোনো অবস্থাতেই মঙ্গল বয়ে আনবে না। ভূমিহীনদের মধ্যে খাসজমি বন্দোবস্ত দিয়ে সে জমিতে মৎস্য চাষের পরিকল্পনা করতে হবে। এ বিষয়ে ভূমিহীনদের কারিগরি দক্ষতা তৈরি ও বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ প্রদান করাও অপরিহার্য।

Mahmudul Huq Foez
 
Advertisement
 
আপনজন
 
ভালোবাসার একটি গোলাপ
সাতরাজারই ধন,
কোথায় খুঁজিস ওরে ক্ষেপা
এইতো আপন জন।
নীরবতা
 
নীরবে কেটেছে দিবস আমার
নীরবে কেটেছে রাত,
নীরবে হেনেছে হৃদয় আমার
প্রণয়ের অভিসম্পাত।
রঙ
 
রঙ দেখেছো রঙ ?
শাওন রাতের
নিকষ কালো
অন্ধকারের রঙ !
রঙ দেখেছো রঙ !
কমিউনিটি রেডিও’র অনুষ্ঠানের বিষয়বস্তু (content)
 
কমিউনিটি রেডিও’র অনুষ্ঠানের বিষয়বস্তু (content)
সম্পর্কে অংশগ্রহণমূলক জরিপ
মাহ্‌মুদুল হক ফয়েজ

উপকূলীয় জেলা নোয়াখালী একটি দুর্যোগপূর্ণ অঞ্চল হিসাবে পরিচিত। নোয়াখালী সদরের প্রায় দুই তৃতীয়াংশই চর এলাকা। এখানে বাস করে সাধারন নিম্ন আয়ের মানুষ। তাদের অধিকাংশই কৃষি কাজের সঙ্গে জড়িত। তাছাড়াও দিনমজুর, রিক্সাশ্রমিক, জেলে প্রভৃতি পেশার মানুষ এখানে বাস করে। খুব কমসংখ্যক নারি কৃষি সহ বিভিন্ন কাজ করলেও তারা মূলত ঘরকন্যার কাজ করে থাকে। ঘর কেন্দ্রিক নানান কাজের সঙ্গেও এরা জড়িত। এইসব নিম্ন আয়ের মানুষদের মধ্যে শিক্ষার হার খুব কম। জীবনযাপন সম্পর্কে সচেতনতাও এদের তেমন নেই। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় এরা বেশীরভাগ সময়ে সনাতন জ্ঞান, নিজস্ব ধারনা এবং আকাশের হাবভাব দেখে বুঝতে চেষ্টা করে। প্রায় ক্ষেত্রে এরা নিয়তির উপর নিজেদেরকে সমর্পন করে থাকে। তবে গত কয়েক বছরের বড় ধরনের ঝড় জলোচ্ছাস ও সাম্প্রতিক সিডরের কারনে এদের ভিতর কিছুটা সচেতনতা লক্ষ করা যাচ্ছে। এদের অধিকাংশের বাড়িতে রেডিও কিংবা টেলিভিশন নেই। তবে তারা স্থানীয় বিভিন্ন বাজারে রেডিও টেলিভিশন থেকে খবরাখবর পেয়ে থাকে।
গত পঞ্চাশ বছরের মধ্যে এ অঞ্চলে অনেক গুলো বড় বড় ঝড় জলোচ্ছাস গর্কী সহ বেশ কিছু প্রাকৃতিক দুর্যোগ বয়ে গিয়েছিলো। সে দুর্যোগ গুলোতে প্রচুর প্রাণহানি ও সম্পদের ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। ‘৫৮.’৬০, ও ‘৭০ এর জলোচ্ছাস এ অঞ্চলে ব্যপক ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়েছিলো। সে সময় এখানকার মানুষ কোনো মাধ্যম থেকে কেনো সংবাদই পেতোনা। সে সময়ের সরকার গুলোও ছিলো এব্যপারে একেবারেই উদাসীন।
নোয়াখালী সদরের সর্বদক্ষিনে হাতিয়া ষ্টিমার ঘাট ও অতিসম্প্রতি বয়ার চরের সর্বদক্ষিনে সমুদ্র উপকূলে ফেরী চলাচলের জন্য চেয়ারম্যান ঘাট নামক স্থানে বাংলাদেশ অভ্যন্তরিণ নৌপরিবহন সংস্থার একটি পল্টুন স্থাপিত হয়েছে । এখানে হাতিয়া দ্বীপ ও নোয়াখালীর মূল ভূখন্ডের মধ্যে ফেরি যোগাযোগ রয়েছে । এ এলাকায় মেঘনার মোহনায় প্রচুর সমুদ্রগামী মাছ ধরার ট্রলার ও ছোটছোট জেলে নৌকা এসে ভীড়ে থাকে । এই ফেরীঘাটের সুবাদে এখানে একটি জমজমাট বাজার গড়ে উঠেছে। এখানের অনেক জেলে জানিয়েছেন, তাদের অনেকেরই নিজস্ব কোনো রেডিও নেই। যারা চরের কাছাকাছি থেকে সাধারনত: মাছ ধরে থাকে। ছোট নৌকা নিয়ে তারা কখনো গভীর সমুদ্রে যায় না। কখনো কোনো দুর্যোগ দেখলে নদীর হাবভাব বুঝে সাবধানতা অবলম্বন করে। সারাদিন মাছ ধরা শেষে রাতে তারা চেয়ারম্যান ঘাটে কিংবা হাতিয়া ষ্টিমার ঘাটে আসলে লোকমুখে বিভিন্ন সংবাদ পেয়ে থাকে। নদীর কূলের এ বাজার গুলোতে এখন রেডিও তেমন শুনা হয়না। চা দোকান গুলোতে টেলিভিশন আছে । তাই সেখানে কাষ্টমারের ভীড় লেগে থাকে। যে দোকানে টেলিভিশন নেই সে দোকানে লোকজন তেমন যায় না। এসব দোকান গুলোতে বেশীর ভাগ সময় নাটক ও সিনেমা বেশী দেখা হয়। তবে দুর্যোগকালীন সময় সংবাদ বেশী দেখা হয়। এলাকার মানুষদের বদ্ধমূল ধারনা জন্মেছে যে, রেডিও টেলিভিশনে জাতীয় সংবাদ ছাড়া স্থানীয় সংবাদ প্রচারিত হয়না। তাই তারা খুব প্রয়োজনীয় তথ্য ও স্থানীয় সংবাদ গুলো লোকমারফত পেয়ে থাকে। তবে তা অনেক ক্ষেত্রে সঠিক হয়না। দুর্গম অঞ্চলের অনেক মানুষ জানিয়েছেন গত সিডরের সময় তারা লোকমুখে সংবাদ পেয়েছিলেন। সাগরের অবস্থা দেখে তারা সাগর থেকে ডাঙ্গায় চলে এসেছেন, তবে অনেকে উপরে সাগরের কাছাকাছি নিজেদের ঘরেই ছিলেন। অনেকেই নিজের বাড়িঘর ছেড়ে আশ্রয়কেন্দ্রে যায়নি।
জরিপের বিশ্লেষন: কমিউনিটি রেডিও’র অনুষ্ঠানের বিষয়বস্তু (content) সম্পর্কে অংশগ্রহণমূলক জরিপ কার্য চালানোর সময় জানা গেছে, এরকম একটি সম্প্রচার কেন্দ্র সন্মন্ধে অনেকেরই ধারনা খুবই অস্পস্ট। এব্যপারে অনেকের কোনো রকম কোনো ধারনাই নেই। তবে বিষয়টি বুঝার পরে সবার মধ্যেই প্রচুর আগ্রহের সৃষ্টি হয়। তারা সকলেই মত দেন যে এরকম একটি কেন্দ্র এলাকায় খুবই প্রয়োজন।
নোয়াখালী জেলার সর্বদক্ষিনে সমুদ্র উপকূলের কয়েকটি এলাকায় মোট ২০জনের মধ্যে এ জরিপ চালানো হয়। এখানে মাত্র দুজনের রেডিও এবং মাত্র এক জনের নিজস্ব একটি ছোট্ট টেলিভিশন ও রেডিও রয়েছে। তাদের অবশ্য খবর তেমন শুনা হয়না। রেডিওতে গান এবং টেলিভিশনে নাটক দেখা ও গানশুনা বেশী হয়। নারিদের শুধু নাটক ও গানই শোনা হয়। তবে পুরুষরা মাঝে মাঝে খবর শুনে থাকে। নারিদের মধ্যে খবর শুনার আগ্রহ খুব কম। গত সিডরের সময় পুরুষরা ১০০ শতাংশই রেডিও কিংবা টেলিভিশনে খবর পেয়েছেন কিন্তু ১০০ শতাংশ নারি বলেছেন তারা তাদের স্বামী কিংবা লোকমারফত খবর পেয়েছেন। ৮০শতাংশ বলেছেন তারা ঝড়ের পূর্বাভাষ পেয়ে নিজেদের জায়গায়ই অবস্থান করেন। এর কারণ হিসাবে তাঁরা বলেন বাড়ির নিরাপত্তা ও আশ্রয়কেন্দ্রে পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা নেই। যেমন সেখানে কোথাও পানি বা বাথরুমের ব্যবস্থা নেই। এ নিয়ে বিশেষ করে মেয়েদের খুবই অসুবিধা পড়তে হয়। তাই অনেকেই সেখানে যেতে তেমন আগ্রহী হয়না। নিয়তির উপরও তারা অনেকাংশে নির্ভরশীল। ১০০ শতাংশ বলেছেন প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময়কালে তাঁরা আবহাওয়ার সংবাদ শুনতে চান। ১০০ শতাংশ বলেছেন তাদের অনুষ্ঠান দেখতে সবচেয়ে বেশী আগ্রহ নাটকের প্রতি । তবে বাংলা সিনেমার প্রতিও তাদের আগ্রহ রয়েছে।
১০০শতাংশ জানিয়েছেন, কমিউনিটি রেডিও স্থাপিত হলে শিক্ষার উপর সবচেয়ে বেশী অনুষ্ঠান প্রচার করা দরকার। ৭০ শতাংশ জানিয়েছেন আনন্দের মাধ্যমে শিশুদের শিক্ষা দেয়া উচিত। অন্য ৩০ শতাংশ জানিয়েছেন শাসন না করলে শিশুদের পড়াশুনা হয়না। তবে তারা এও জানিয়েছেন এর মাত্রা যেন অতিরিক্ত না হয়। এ বিষয়ে শিশুদের উপযোগী অনুষ্ঠান প্রচারের প্রয়োজনীয়তার কথা তারা জানিয়েছেন। ১০০ শতাংশ জানিয়েছেন বয়ো:সন্ধিকালীন সময়ে মেয়েদের সমস্যা বিষয়ক সচেতনতা মূলক অনুষ্ঠান বিশেষ ভাবে প্রচারের প্রয়োজন রয়েছে। সবাই মনে করেন এ ব্যপারে মেয়েরা এমন কি অভিভাবকরাও এ বিষয়ে তেমন সচেতন নন। এ নিয়ে সামাজিক ও পারিবারিক দ্বিধা কাজ করে। অনেকেই এ বিষয়ে কথা বলতে লজ্জা বোধ করেন। এথেকে মেয়েরা সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। স্বাস্থ্য বিষয়ে ১০০শতাংশ জানিয়েছেন মাতৃস্বাস্থ্য, শিশুস্বাস্থ্য, সাধারন রোগবালাই, ডায়রিয়া, খাদ্যে পুষ্টিমান, টিকা প্রভৃতি বিষয়ে সচেতনতা মুলক অনুষ্ঠান প্রচার করা দরকার। তবে মাত্র এক জন এইড্‌স বিষয়ে অনুষ্ঠান করার কথা জানিয়েছেন। বাসস্থান বিষয়ে ৭৫শতাংশ জানিয়েছেন, ভূমি ও ভূমির অধিকার বিষয়ে নানান অনুষ্ঠান প্রচার করা দরকার। অবশ্য এ ব্যপারে পুরুষরাই বেশী আগ্রহী। নোয়াখালীতে তাঁত শিল্পের তেমন কোনো প্রসার নেই। এবিষয়ে কারো তেমন কোনো আগ্রহ পরিলক্ষিত হয়নি। তবে ১০০শতাংশই হস্তশিল্প ও নারিদের অর্থনৈতিক কার্যকলাপে সম্পৃক্ততার বিষয়ে অনুষ্ঠান প্রচার করার কথা বলেছেন। একজন মন্তব্য করেন এক সময় নোয়াখালীতে প্রচুর তাঁতের প্রসার ছিলো । কিন্তু কালের গর্ভে তা এখন বিলুপ্ত হয়ে গেছে। জেলার বিভিন্ন জায়গায় স্থানে স্থানে যুগীপাড়া ছিলো। সেখানে লুঙ্গি গামছা শাড়ি এসব স্থানীয় ভাবে তৈরী হতো। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়েও এগুলো বাইরের জেলা গুলোতে চালান হতো। কমিউনিটি রেডিওর মাধ্যমে সচেতনতা জাগিয়ে তুলতে পারলে সেগুলো হয়তো আবার চালু হবে। আশা করা যায় এ থেকে তখন হয়তো এ এলাকার অনেক উন্নতি সাধিত হবে।
১০০শতাংশ জানিয়েছেন কৃষিঋণ, সার, বীজ, উচ্চফলনশীল ধানের আবাদ, হাঁস মুরগি পালন, কীটনাশক ছাড়া সব্জী চাষ, খাদ্যে পুষ্টিমান ইত্যাদি বিষয়ে অনুষ্ঠান প্রচার করা প্রয়োজন।
১০০শতাংশ জানিয়েছেন অনুষ্ঠান প্রচারের মাধ্যম হওয়া উচিত নাটক, কথিকা, জীবন্তিকা ইত্যাদির মাধ্যমে। এরা আরো জানিয়েছেন স্থানীয় ভাষায় অনুষ্ঠান প্রচারিত হলে সবার কাছে তা গ্রহনযোগ্য হবে। এছাড়াও স্থানীয় ভাষায় নাটক, গান এবং স্থানীয় সমস্যা ও সমাধান ইত্যাদি বেশী বেশী প্রচার হওয়া দরকার বলে সবাই জানিয়েছেন।
উপসংহার:- সার্বিক জরিপে দেখা যায় এ এলাকার জন্য কমিউনিটি রেডিওর অত্যন্ত প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। দুর্গম এ অঞ্চলের মানুষ কাছের খবরটিও সঠিক ভাবে পায়না। কথায় কথায এলাকাবাসী জানায়, ‘‍ইরােক েবামায় মানুষ মরার খবর আমরা সাথে সাথে রেডিও টেলিভিশনে পাই কিন্তু পাশের গ্রামে মড়ক লেগে হাঁসমুরগী মারা গেলে আমরা তার খবর পাইনা‍ অথচ এটি আমাদের জন্য অধিকতর জরুরী’। এখানে এটি স্থাপিত হলে শুধু দুর্যোগকালীন সময়েই নয়, এ কেন্দ্র গ্রামীণ জনগণের সার্বক্ষনিক দিনযাপনের অনুসঙ্গ হয়ে থাকেব। স্থানীয় ভাষায় স্থানীয় আঙ্গিকে স্থানীয় সমস্যাদি বিষয়ে অনুষ্ঠান প্রচারিত হলে এটি জনগনের মধ্যে জনপ্রিয়তা লাভ করবে এবং অধিক গ্রহনযোগ্যতা পাবে। এলাকায় সচেতনতা বাড়বে। উপকৃত হবে প্রান্তিক মানুষ।

মাহ্‌মুদুল হক ফয়েজ
ফ্রি-ল্যান্স সাংবাদিক
মোবাইল: ০১৭১১২২৩৩৯৯
e-mail: mhfoez@gmail.com

Mail to : massline@bangla.net
masslinemediacenter@yahoo.com



 

=> Do you also want a homepage for free? Then click here! <=
সকল সত্ব সংরক্ষিত সকল সত্ব সংরক্ষিত সকল সত্ব সংরক্ষিত